ইবিতে আবার মারধর ও যৌন হয়রানির অভিযোগ ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে

49

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) লালন শাহ হলে এক নবীন শিক্ষার্থীকে মারধর ও র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (২০ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

Advertisement
spot_img

সোমবার (১৯ জুন) রাতে কয়েক দফায় তাকে মারধর করা হয় বলে জানান ভুক্তভোগী। অভিযুক্ত আফিফ হাসান ও তন্ময় বিশ্বাস বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তারা শাখা ছাত্রলীগের কর্মী বলে নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগী লিখিত অভিযোগে বলেন, আমি লালন শাহ হলের ৩৩০ নম্বর রুমে (গণরুম) থাকি। সোমবার রাত ২টায় আমাকে ১৩৬ নম্বর গণরুমে ডাকেন চারুকলা বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আফিফ হাসান, তন্ময় বিশ্বাস ও তার সহযোগীরা। এ সময় তারা আমার ওপর মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার করে ও আমি যৌন হয়রানির স্বীকার হই। এরপর হল থেকে বের হয়ে জিয়া মোড়ে আসি। পরে আমি হলে ঢোকার সময়ে হল গেটে আমাকে আফিফ ও তন্ময় মারধর করেন এবং মারতে মারতে জিয়া মোড়ে নিয়ে আসেন। এ সময় আমার জামা ছিঁড়ে যায় ও চশমা ভেঙে যায়। আমাকে এরপরও ছাত্রলীগের রুমে নিয়ে গিয়ে যেখানে আবার মারধর করেন তারা।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে এ বিচার চেয়ে

অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী। এ বিষয়ে অভিযুক্ত আফিফ হাসানের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তবে অভিযুক্ত তন্ময় বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, তার সঙ্গে একটু মনোমালিন্য হয়েছিল। পরে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় ভাই বিষয়টি মীমাংসা করে দেন। তাকে কোনো মারধর করা হয়নি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় বলেন, আমি বিষয়টি অবহিত হওয়ার পর উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টি সমাধান করে দিয়েছিলাম। তবু শুনেছি এ ঘটনায় ভুক্তভোগী লিখিত অভিযোগ দিয়ে আবার সেটি ফেরত নিয়েছেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদাৎ হোসেন আজাদ বলেন, আমি বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত হয়েছি। অফিস শেষের সময়ে একটি লিখিত অভিযোগ অফিসে দিয়েছে একজন ছাত্র। আগামীকাল (বুধবার) সকালে বিষয়টি দেখার পরে বিস্তারিত বলতে পারব।

চলতি বছর ১১ ফেব্রুয়ারি দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে রাত সাড়ে ১১টা থেকে রাত প্রায় ৩টা পর্যন্ত এক ছাত্রীকে শারীরিক নির্যাতন করেন ছাত্রলীগের কয়েকজন নেত্রী। যা নিয়ে দেশজুড়ে আলোড়ন ওঠে। এ ঘটনা আদালত পর্যন্ত গড়ায়। এ ঘটনায় বিচারের মুখোমুখি রয়েছেন অভিযুক্তরা।

Advertisement
spot_img