চট্টগ্রামের সাগরিকায় গাড়ি প্রতি ২০০ টাকা ঘুস নেন সার্জেন্ট মাহফুজ!

30

চট্টগ্রাম মহানগরীর সাগরিকা মোড়ে দিনদুপুরে সড়কে চলছে চাঁদাবাজি। সার্জেন্ট মাহফুজের বিরুদ্ধে গাড়ি প্রতি ২০০ টাকা করে চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

Advertisement
spot_img

সোমবার বেলা ১১টার দিকে সার্জেন্ট মাহফুজের নেতৃত্বে কনস্টেবল বিপ্লব, জিয়া ও মোরশেদ বিভিন্ন গাড়ি আটকিয়ে প্রথমে কাগজপত্র নিয়ে যান পুলিশ বক্সে। সেখানে কাগজের বিভিন্ন ত্রুটি ধরে চাঁদা নেওয়া হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

ভুক্তভোগীদের ভাষ্য, গাড়ি চেক করার নামে দাঁড় করানো হচ্ছে। গাড়ির কাগজপত্র ঠিক থাকলেও বিট চাঁদা নামে ২০০ টাকা করে চাঁদা নেন সার্জেন্ট মাহফুজ। তা ছাড়া গাড়ির কাগজপত্র ও চালকের লাইসেন্স না থাকলে এই চাঁদার পরিমাণ বাড়ে কয়েকগুণ।
ভুক্তভোগী পিকআপচালক মোরশেদ বলেন, আমার গাড়ির সব কাগজপত্র আপডেট, তার পরও কনস্টেবল বিপ্লব, মোরশেদ ও জিয়া পুলিশ বক্সে নিয়ে যায়। পরে বিট খরচ ২০০ টাকা দিতে বাধ্য করেন।

এদিকে সাগরিকায় দায়িত্বরত সার্জেন্ট নিজে এই চাঁদা নেন বলে জানান কনস্টেবল জিয়া, বিপ্লব ও মোরশেদ।

তারা আরও জানান, ট্রাফিক সদস্যদের কাজ হলো— সার্জেন্টকে সহযোগিতা করা।

ঢাকা মেট্রো-ট-২০-০২২৮ নং ট্টাকের চালক আব্বাস বলেন, গাড়ির সব কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স আপডেট, তার পরও সার্জেন্ট মাহফুজ ২০০ টাকা পুলিশ বিট চাঁদা নিয়েছে।

এ বিষয়ে সার্জেন্ট মাহফুজ বলেন, আমি এ বিষয়ে কথা বলতে প্রস্তুত নই। আপনার সামনেই কয়েকটা গাড়ি চেক করেছি। কাগজপত্র আপডেট না থাকলেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে টিআই সন্তোষ ধামেই বলেন, সড়কে বিট খরচ বলে কিছু নেই। কেউ সড়কে চাঁদাবাজি করলে তার দায়ভার সে বহন করবে। তবে ভবিষ্যতে এ ধরনের অনৈতিক লেনদেন বন্ধ করতে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

Advertisement
spot_img