শিক্ষা-চাকরি

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ৮০ শতাংশই ভুগছেন হতাশায়: জরিপ

শিক্ষা-চাকরি

41

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে প্রায় ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীই হতাশায় কাটান বলে আঁচল ফাউন্ডেশনের এক জরিপে জানা গেছে। জরিপের তথ্যে জানা যায়, এই শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন বিভিন্ন সময়ে যেতে হয়েছে হতাশার মধ্য দিয়ে। ক্লান্তি, ওজন কমে যাওয়া, কোনো কিছু উপভোগ না করা, ঘুমের ধরনের পরিবর্তন, আত্মহত্যার চিন্তা, কাজে মনোযোগ দিতে না পারা ইত্যাদি অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে তাদের যেতে হয়েছে বলে জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে।

Advertisement
spot_img

আজ শুক্রবার ‘বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির কারণ’ শীর্ষক সমীক্ষা নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়ায় ফাউন্ডেশনটি। জরিপটি গত ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে চলে ৩০ মে পর্যন্ত। এতে সারা দেশের ৮৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১ হাজার ৫৭০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন।

ফাউন্ডেশনের তথ্য-উপাত্ত থেকে আরও জানা যায়, ৭৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে হতাশার মধ্য দিয়ে গেছেন। মাত্র ২০.১ শতাংশ শিক্ষার্থী এ ধরনের অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাননি। অতীতের সঙ্গে হতাশার উপসর্গ তুলনা করে দেখা গেছে, ৬৬.১ শতাংশ শিক্ষার্থীদের আগের চেয়ে বেশি হতাশার উপসর্গ নিয়ে আছেন। এর মধ্যে ৮৩.৪ শতাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বিষণ্নতার মুখোমুখি হয়েছেন বলে জানা গেছে। বাকি ১৬.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর ভেতর হতাশার উপসর্গ দেখা যায়নি। অপরদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ৭৯.৯ শতাংশ হতাশার উপসর্গগুলো দেখা গেছে। অন্যদিকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ৬১.৩ শতাংশ গেছেন হতাশার মধ্য দিয়ে।

জরিপে শিক্ষার্থীদের থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে দেখা যায়, ৫৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। বিভিন্ন কারণে নিজেকে অন্যদের সঙ্গে তুলনা করার কারণে হতাশায় ভুগছেন বলেও জানা গেছে। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা নিয়ে ৯.৪ শতাংশ, হল বা আবাসিক পরিবেশ নিয়ে ৯.০০ শতাংশ, সহপাঠী বা শিক্ষক কর্তৃক বুলিংয়ের কারণে ৫.৩ শতাংশ এবং ওপরের সবগুলো কারণের জন্য ১.৬ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশাগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানা যায়। এছাড়া অন্যান্য কারণে হতাশায় ভুগছেন ৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী।

সহপাঠী, সিনিয়র কিংবা শিক্ষকের দ্বারা শারীরিক-মানসিক হয়রানির শিকার হয়েছেন ৩১.১ শতাংশ শিক্ষার্থী। বুলিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৫.৯ শতাংশ, র‍্যাগিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৩.৪ শতাংশ, যৌন হয়রানি শিকার হয়েছেন ১.৮ শতাংশ এবং স্টাফ কর্তৃক ১.২ শতাংশ এবং অন্যান্যদের দ্বারা ৫.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী হয়রানির শিকার হয়েছেন। কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হননি ৬৮.৯ শতাংশ।

হয়রানির ফলে মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব পড়েছে ৪২.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর, মোটামুটি প্রভাব পড়েছে ৪৮.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর এবং কোনোরূপ প্রভাব পড়েনি ৮.৮ শতাংশ শিক্ষার্থীর। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ নিয়ে পুরোপুরি অসন্তুষ্ট ৩৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী, মোটামুটি সন্তুষ্ট ৫৮.১ শতাংশ এবং পুরোপুরি সন্তুষ্ট মাত্র ৮.৪ শতাংশ।

জরিপে ৫৯.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা মন খুলে কথা বলার মতো কোনো শিক্ষক পাননি। এর মাঝে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬২.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী নিজ শিক্ষকদের সামনে নিজেকে প্রকাশ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। ৩৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা নিজ বিভাগের শিক্ষকদের সামনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেন। অন্যদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫৮.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন এবং ৪১.২ শতাংশ শিক্ষার্থী ফ্যাকাল্টির অন্যান্য মেম্বারদের সামনে নিজেকে প্রকাশ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেননি।

এ ছাড়া হলের পরিবেশ নিয়ে সন্তুষ্টি-অসন্তুষ্টির ক্ষেত্রে ৩৯.৩ শতাংশ জানিয়েছেন তারা পুরোপুরি অসন্তুষ্ট। সন্তুষ্টির জানিয়েছেন ১০.০০ শতাংশ শিক্ষার্থী। বাকিরা জানিয়েছেন তারা মোটামুটি সন্তুষ্ট।

অসন্তুষ্টির কারণ হিসেবে ৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী থাকার পরিবেশকে দায়ি করেছেন। অনুন্নত খাবারকে দায়ি করেছেন ৭.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। গ্রন্থাগার সংকট মনে করছেন ৩.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী এবং সবগুলো কারণকেই দায়ি করছেন ৬৮.২ শতাংশ শিক্ষার্থী। ১০.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা অন্যান্য কারণকে অসন্তুষ্ট। ৭০.১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন হলের পরিবেশ তাদের মানসিক স্বাস্থ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

জরিপের তথ্য অনুসারে, ৩১.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। ২৯.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্যারিয়ার হিসেবে সরকারি চাকরি করতে চান। ৯.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ব্যবসা বা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। মাত্র ৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী বেসরকারি চাকরি করতে চান। বাকি শিক্ষার্থীরা এখনো কোনোরূপ ক্যারিয়ার ভাবনা ঠিক করেনি যা মোট শিক্ষার্থীর প্রায় ২২ শতাংশ।

এদিকে জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মধ্যে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন ৫.৯ শতাংশ। আত্মহত্যা চিন্তায় এসেছে কিন্তু আত্মহত্যা চেষ্টা করেননি ৩৯.২ শতাংশ। আত্মহত্যা চিন্তা এসেছে এবং আত্মহত্যার উপকরণও জোগাড় করেছেন ৭.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। কখনো আত্মহত্যা চিন্তা আসেনি ৪৭.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর। এছাড়াও জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫২.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তাদের আত্মহত্যা কথা মাথায়ও আসেনি।

আত্মহত্যাপ্রবণ এ সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩০ শতাংশ ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশা। ১৬.২ শতাংশ বাবা-মায়ের সঙ্গে অভিমানের কারণে হতাশ। ৯.৭ শতাংশ হতাশ প্রেমঘটিত বিষয়ে। আর ৯ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশ অর্থনৈতিক কারণে। অন্যরা তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করায় হতাশ ৪.৩ শতাংশ। ৩০.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী অন্যান্য বিভিন্ন কারণে আত্মহত্যা করার চিন্তা এসেছে বলে জানিয়েছেন।

এছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে সন্তুষ্ট ৩৮.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। এবং ৩৫.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী অসন্তুষ্ট।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির দূর করতে সংগঠনটি বেশকিছু প্রস্তাবনা পেশ করেছে। এগুলো হলো, ক্যাম্পাসে কাউন্সেলিং ইউনিটের ব্যবস্থা করা। ক্যাম্পাসে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা। ক্যাম্পাসে যেন কেউ বুলিংয়ের শিকার না হন তা মনিটরিং করা। নিরাপদ বাসস্থান ও উন্নতমানের খাবারের ব্যবস্থা করা। প্রয়োজনে বৃত্তি ও প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা প্রদান করা। শিক্ষার্থী ও শিক্ষকের সম্মান ও আস্থার সম্পর্ক উন্নয়ন করা, প্রয়োজনে কাউন্সেলিং করানো। মানসিক স্বাস্থ্যসেবাকে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত করা। সেমিনার ও মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা। বিশিষ্ট মনোবিজ্ঞানী বা বিশেষজ্ঞদের এসব সেশনে বিভিন্ন সমস্যা ও এগুলোর সমাধান নিয়ে লেকচার দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো। দেশের সকল স্কুল, কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট (মনোবিদ) এডুকেশনাল কাউন্সেলিং সাইকোলজিস্ট নিয়োগ দেওয়া।

জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ২৫১ জন, দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ২৫৪ জন, তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৬৯ জন, চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৪০ জন, মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৪১ জন, এবং সদ্য গ্র্যাজুয়েট ছিলেন ১৫ জন।

Advertisement
spot_img